Friday, 22 July 2016

লোহাগাড়ায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩,আহত প্রায় অর্ধশতাধিক

লোহাগাড়া উপজেলায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ৩জন নিহত ও আনুমানিক অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে বলে সংবাদ পাওয়া গেছে।২২জুলাই সকাল আনুমানিক সাড়ে ১০টায় চুনতি ইউনিয়নের নলবনিয়া এলাকার খাঁনদিঘীর পাড় সংলগ্ন আরকান সড়কে যাত্রীবাহী দুটো বাসের সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনায় নিহত ৩জনের মধ্যে নুরুল আমিন (৩৫),তার বাড়ী চকরিয়ায় এবং অপরজনের নাম মোহাম্মদ ইছহাক(৫৫)। তবে,নিহত ৩জনের মধ্যে ছোট্ট শিশুটির পরিচায় পাওয়া যায়নি।দুর্ঘটনার পর পরই চুনতি ইউপির নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন জনু কোম্পানী দ্রুত ঘটনাস্হলে পৌঁছে স্হানীয় লোকজনের সহায়তায় আহতদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্রে প্রেরণ করেন।সে কারণে আহতদের সকলের নাম ঠিকানা জানা সম্ভব হয়নি।আহতদের মধ্যে যাদের পরিচয় পাওয়া গেছে তারা হলেন যথাক্রমে মনজু আলম(৪৫), তিনি চকরিয়ার বদরখাঁলী এলাকার গোলাম রহমানের পুত্র।রামু গর্জনিয়া এলাকার মৃত আলী হোসেনের স্ত্রী খদিজা বেগম(৫৫), মহেশখালি এলাকার মাসুকের স্ত্রী রীনা আক্তার(২৮), মহেশখালি এলাকার বিমল বড়ুয়ার স্ত্রী জুরানী বড়ুয়া,চকরিয়ার নতুন রাস্তার মাথা এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের পুত্র মোহাম্মদ ইয়াছিন(৪০), মহেশখালি চিনি পাড়া এলাকার মোহাম্মদ ইলিয়াছের পুত্র হুমায়ুন কবির(৩০), মহেশখালি মাদার বাড়ী এলাকার বদর উদ্দিনের স্ত্রী মোহছেনা বেগম (৪৫), চকরিয়া বানিয়ার ছড়া এলাকার আমিরের স্ত্রী নুরুন্নাহার(৩০),গর্জনিয়া এলাকার নুর আহমদের পুত্র মোহাম্মদ হোসেন(৪৫), অপর মহিলার বয়স আনুমানিক ২৫ বছর এবং ২বছরের এক শিশু সন্তানের পরিচয় পাওয়া যায়নি।আহতদের মধ্যে মনজুর আলম,ইয়াছিন ও নুরুন্নাহার বেগম ছাড়া বাদবাকীদেরকে চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ডিউটি অফিসার প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।ঘটনার প্রত্যক্ষ দর্শী সুত্রে জানা যায়,উল্লেখিত সময়ে শাহ আমিন সার্ভিসের চট্রগ্রাম অভিমুখী চট্টমেট্টো-জ-১১-০৮৭২ বেপরোয়া গতিতে আসছিল।একই সময়ে বিপরীত দিক অর্থাৎ কক্সবাজার অভিমুখী অপর একটি যাত্রীবাহী বাস চট্টমেট্টো-জ-০৫-০২৩০ ঘটনাস্হলে পৌঁছলে উভয় গাড়ির মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।এতে দুমুড়ে-মুচড়ে গিয়ে কক্সবাজার অভিমুখী যাত্রীবাহী বাসটি সড়কের এক পাশ কাৎ হয়ে উল্টে যায়।এবং অপর বাসটি সড়কের উপর দাঁড়িয়ে থাকলেও তার একটি সাইড মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্হ হয়।ঘটনার সংবাদ পেয়ে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্হলে পৌঁছে আহত ও নিহতদের খোঁজ খবর নিতে জোর তৎপরতা চালাতে দেখা গেছে।পরবর্তীতে দোহাজারী হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্হল থেকে গাড়ি ২টি তাদের হেফাজতে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

No comments:

Post a Comment